শিক্ষার্থীকে সমকামিতার প্রস্তাব, শিক্ষককে অব‌্যাহতি

 

নিজস্ব প্রতিনিধিঃবরিশাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজির ফার্সেসি বিভাগের চুক্তিভিত্তিক এক শিক্ষ
কের বিরুদ্ধে ছাত্রদের সমকামিতার প্রস্তাব দেওয়‌ার অভিযোগ ওঠায় তাকে সাময়িক অব‌্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইনস্টিটিউটের অধ‌্যক্ষ ডা. মানস কৃষ্ণ কুন্ডু।

তিনি বলেন, চুক্তিভিত্তিক শিক্ষক মিজানুর রহমানকে প্রথমে হোস্টেলের সহকারী সুপার পদ থেকে অব‌্যাহতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ইনস্টিটিউট থেকেও সাময়িক অব‌্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অভিযোগের বিষয়টি তদন্তে ইন্সট্রাক্টর আব্দুস সাত্তারকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন‌্য বলা হয়েছে।

অধ‌্যক্ষ বলেন, মিজানুর রহমান আমার কোয়ার্টারেই থাকতেন। তাকে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং কোয়ার্টারে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার স্বাস্থ‌্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর শিক্ষক মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন এক ছাত্র। অভিযোগকারী ওই ছাত্র জানান, শিক্ষক মিজানুর রহমান নানাভাবে ভয় দেখিয়ে সমকামিতার প্রস্তাব দিতেন। শুধু আমাকে নয়, অনেক ছাত্রকেই তিনি এমন প্রস্তাব দিয়েছেন। কলেজের ছাত্রনেতাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকায় কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস করেন না। তিনি আমার সঙ্গে মেসেঞ্জারে কথোপকথনে একাধিকবার আমাকে সমকামিতার প্রস্তাব দিয়েছেন।

ওই ছাত্রের অভিযোগের সঙ্গে সংযুক্ত আট পৃষ্ঠার প্রিন্ট করা মেসেঞ্জারের কথোপকথনে ওই ছাত্রকে অনেকবার শিক্ষক মিজানুর রহমানকে তার রুমে ডাকার পাশাপাশি সমকামিতার প্রস্তাব দেওয়ার বিষয়টি লক্ষ‌্য করা গেছে।

এছাড়াও এক ছাত্র মঙ্গলবার অধ‌্যক্ষ বরাবর মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ করেছেন।

এ সব অভিযোগের বিষয়ে শিক্ষক মিজানুর রহমান বলেন, আমাকে অব‌্যাহতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমি কিছু করিনি। আমার আইডি হ‌্যাক হয়েছিল। থানায় জিডিও করেছি। তদন্ত কমিটির তদন্তে সব কিছু বের হয়ে আসবে। গভীর ষড়যন্ত্র চলছে আমার বিরুদ্ধে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here