বাবুগঞ্জে বসতঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গ্রেফতার-২

 

বাবুগঞ্জ প্রতিনিধিঃ জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষদের দেয়া আগুনে ৩টি ছাগলসহ বিধবা মাসুদা বেগমের বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার মাসুদা বেগম বাদী হয়ে ৬ জনকে নামধরা ও ৪/৫ জনকে অজ্ঞ্যাতনামা আসমী করে বাবুগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-০২।
এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মাসুদা বেগমের দুই জাঁ’কে (স্বামীর ভাইয়ের স্ত্রী) রাজিয়া বেগম (৩৫) ও জাহানারা বেগমকে (৪০)কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মামলার অন্য আসামীরা ঘটনার সময় থেকে পলাতক রয়েছেন।
অগ্নিসংযোগের ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সন্ধ্যায় বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ ভূতেরদিয়া গ্রামে মৃত্যু আমজাদ আলী হাওলাদারের বাড়িতে।
বাবুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান জানান, রহস্যজনক অগ্নিকান্ডে মাসুদা বেগমের বসতঘর ভস্মিভূত হয়। এতে জড়িত থাকার অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই নারীকে বুধবার রাতে আটক করা হয়।
প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। গ্রেফতার দুই নারী ভুক্তভোগী মাকসুদা বেগমের সম্পর্ক দেবরের ও ভাসুরের স্ত্রী।
মাসুদা বেগম জানান, স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি দুই মেয়ে সন্তান নিয়ে স্বামীর ভিটা আকরে রয়েছেন। তাকে উৎখাতের জন্য নানা ষড়যন্ত্র করতে থাকেন স্বামীর দুই ভাই আমির হোসেন ও দেলোয়ার হোসেন। সম্প্রতি মাকসুদার জমির অংশের মধ্যে জোরপূর্বক পাকাভবন নির্মান কাজ শুরু করেন দেলোয়ার হোসেন। এতে বাঁধা দেন মাসুদা। পরে তিনি আদালতে নালিশী মামলা করলে আদালত ভবন নির্মান কাজ বন্ধ রাখার জন্য থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।
গত বুধবার সকালে বাবুগঞ্জ পুলিশ আদালতের নির্দেশ কার্যকর করতে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেন।
কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য (মেম্বর) আরিফ মাহমুদ খান বলেন, আদালতে নালিশী মামলা দেয়াকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের মধ্যে তুমুল ঝগড়া চলছিল। পরিস্থিতি সামাল দিতে তিনি শালিস করার জন্য উভয়পক্ষকে তার বাসায় আসতে বলেন। বুধবার সন্ধ্যায় আমির হোসেন ও দেলোয়ার হোসেন শালিসে না এসে তাদের স্ত্রীদের পাঠান। স্ত্রী রাজিয়া ও জাহানারা তার (মেম্বর) বাড়িতে এসেও মাসুদা বেগমের সঙ্গে ঝগড়ায় লিপ্ত হলে শালিস করতে ব্যার্থ হন মেম্বর আরিফ মাহমুদ। তিনি বলেন, রাজিয়া ও জাহানারা চলে যাওয়ার পর সাড়ে ৭টার দিকে রহস্যজনকভাবে আগুন লেগে মাসুদার বসতঘর পুড়ে যায়। তখন মাসুদা তার বাড়িতে অবস্থান করছিল।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদিপ্ত সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, প্রাথমিকভাবে অগ্নিসংযোগের ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। এতে জড়িত থাকার অভিযোগে দুই নারীকে আটক করা হয়েছে। পুলিশ সুষ্ঠু তদন্ত করে অগ্নিকাণ্ডের প্রকৃত ঘটনা উন্মোচন করবে।

এছাড়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও রহমতপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মৃধা মুহাম্মাদ আক্তার উজ জামান মিলন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন, উপজেলা প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম প্রমুখ। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগিতায় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে নগদ অর্থ ও টিন প্রদান করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here