কনস্টেবলের সঙ্গে হাত মেলালেন আইজিপি

নিজস্ব প্রতিনিধিঃসম্প্রতি পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ পাবনা জেলা পরিদর্শন করেন। বিদায় লগ্নে আইজিপির এক ছবিকে ঘিরে পুলিশ সদস্যদের মধ্যে উচ্ছ্বাস বইছে। যে ছবিটিতে দেখা যায়, একপাশে রয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের পুলিশ মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ, অন্যপাশে পুলিশের কয়েকজন কনস্টেবল।

গতকাল বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাত ১১ টা ১০ মিনিটে বাংলাদেশ পুলিশের ভেরিফায়েড ফেসবুকে পেজে এমনই একটি ছবি পোস্ট করা হয়।

ওই ছবির ক্যাপশনে উল্লেখ করা হয়, ‘নেতৃত্বকে পূর্ণতা দেয় বিনয়। অধস্তনকে আপন করে নেওয়ার মধ্যেই ঊর্ধ্বতনের ঔদার্য প্রকাশ পায়। স্রেফ হাত মেলানোর একটি ছবি। একপাশে রয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ। অন্যপাশে বাংলাদেশ পুলিশের কয়েকজন কনস্টেবল। কোভিড প্রটোকল মেনে হাত মেলাচ্ছেন তারা! স্বয়ং আইজিপি পদমর্যাদায় বাংলাদেশ পুলিশের কনিষ্ঠতম সদস্যের দিকে হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন!

‘এভাবে হাতে হাত লাগিয়ে বিদায় নেন তখন তা সবার জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে ওঠে। এই দৃশ্য তখন নেতৃত্ব ও মহত্ত্বের অসামান্য ছবি হয়ে ওঠে। এটি শুধু একটি ছবি নয়। এটি বাংলাদেশ পুলিশের পরিবর্তনের এক স্মারক। সময়ের সাথে বদলে যাওয়া বাংলাদেশ পুলিশের এক প্রতিচ্ছবি।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্থিরচিত্রটি এখন ভাইরাল। সেখানে নেটিজেনরা ইতিবাচক মন্তব্যে ভাসিয়ে দিচ্ছেন।

রায়হাদুজ্জামান রাজিব নামের এক নেটিজেন লিখেছেন, ‘সত্যিই তাই। বাংলাদেশ পুলিশ দেশের জন্য অনেক কাজ করছে। যদিও আমাদের অভিযোগ পুলিশ নিয়েই। প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশ পুলিশই অনন্য বাংলাদেশ গঠনে বিরাট ভূমিকা পালন করছে। ধন্যবাদ বাংলাদেশ পুলিশ।’

শাখাওয়াত মিশু লিখেন, ‘দলে যাওয়া পুলিশ বাহিনীর জন্য শুভ কামনা। পুলিশ হবে জনতার।’

জয়নুল আবেদিন টিটো নামের আরেক নেটিজেন লেখেন, ‘অত্যন্ত প্রশংসাজনক। যারা বড় অফিসার, তারা সবার চেয়ে শ্রেষ্ঠ– এই মিথ্যা অহংকারবোধের বীজ বপন যারা করে, তাদেরকে কি শাস্তির মুখোমুখি করা যাবে? সাধারণ মানুষকে ‘তুই’ বলে এড্রেস গালিগালাজ যারা করে, তাদেরকে কি শিক্ষামূলক শাস্তি দেওয়া যাবে ?

পরিবর্তন চাইলে কাউকে না কাউকে শুরু করতেই হবে।,

রাহুল আহমেদ নামের একজন লেখেন, ‘বাংলাদেশের আধুনিক পুলিশের বদলে যাওয়ার অন্যতম পুরোধা ড. বেনজীর আহমেদ।

অনেক অনেক শুভ কামনা।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here