হত্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান পলাশসহ গ্রেপ্তার ৩

নড়াইল প্রতিনিধি:নড়াইল শহর সংলগ্ন সীমাখালী গ্রামের চাঞ্চল্যকর লিয়াকত সিকদার হত্যা মামলার আসামি আউড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যাসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫টার দিকে নড়াইলের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দুটি দেশীয় ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এর আগে এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত সিমাখালী গ্রামের তবিবর সিকদারের ছেলে নাছিম সিকদারকে নারায়ণগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। নাছিমও আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, আউড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যা, সীমাখালী গ্রামের শাহাজান শেখের ছেলে রুবেল শেখ ও একই গ্রামের নয়ন কুমার গুহ’র ছেলে গোপীনাথ গুহ।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায় বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় সদর থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশের যৌথ অভিযানে ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে আত্মগোপনে থাকা চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যা, রুবেল শেখ ও গোপীনাথ গুহকে গ্রেপ্তার করা হয়। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি ছ্যানদা ও একটি স্যামুরাই পানির ডোবা থেকে উদ্ধার করা হয়। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দিয়েছে রুবেল শেখ ও গোপীনাথ গুহ। পরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, পূর্ব-শত্রুতার জের ধরে লিয়াকত সিকদারের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যাদের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এ ঘটনার জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড বলে নিহতের পরিবারের সদস্যরা দাবি করেন। এঘটনায় নিহতের স্ত্রী আসমা বেগম বাদী হয়ে চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যাসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ ও ৪ থেকে ৫ জন অজ্ঞাতদের আসামি করে নড়াইল সদর থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নড়াইল সদর থানার এসআই তুষার কুমার মণ্ডল জানান, গাড়ি চালক লিয়াকত সিকদার হত্যা মামলার অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উল্লেখ্য, নড়াইল শহর সংলগ্ন সীমাখালী গ্রামের সোহরাব সিকদারের ছেলে গাড়িচালক লিয়াকত শিকদারের লাশ গত ২৮ আগস্ট রাত ৮টার দিকে শহরতলীর সীমাখালী এলাকার নবু শেখের বাড়ির পাশে সড়কের পাশ থেকে উদ্ধার করা হয়। নিহতের দুই পা ও একটি হাত শরীর থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন করে দেয় দুর্বৃত্তরা। পরে নড়াইল সদর হাসপাতালে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here