খাটের নিচে মিলল নিখোঁজ পপির লাশ, স্বামী-স্ত্রী আটক

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার কেরোয়া ইউপির সাগরদি গ্রামে পপি সাহা নামে ৭ বছর বয়সী নিখোঁজ শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজের সময় তার কানে দুটি স্বর্ণের ৩ আনার দুল ছিল। হত্যার ঘটনায় ভাড়াটিয়া রুমা ও এমরানকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে এলাকাবাসী।

বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে  লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তবে দুল পাওয়া যায়নি। পপি সাগরদি গ্রামের সৌদি প্রবাসী নির্মল সাহার মেয়ে। ২৫ দিন আগে নির্মল স্ত্রী-মেয়েকে রেখে চাকরির খোঁজে সৌদি আরব যান। পপি সাগরদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী।

স্থানীয়রা জানান, সকাল সাড়ে ১০টা থেকে পপিকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। এতে আশপাশ এলাকা ও সম্ভাব্য স্থানেও তাকে খোঁজা হয়। কোথাও না পেয়ে আশপাশের ঘরগুলোতে খোঁজার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিষয়টি জানতে পেরে পাশের বাড়ির ভাড়াটিয়া রুমা ও এমরান পালানোর জন্য চেষ্টা চালান। টের পেয়ে উপস্থিত সবাই তাদেরকে আটক করে। পরে তাদের ঘরে ঢুকে খাটের নিচে পপির লাশ পাওয়া যায়। এতে স্থানীয়রা তাদেরকে বাড়ির সামনে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে পুলিশে খবর দেয়। তবে পপিকে অন্যান্য স্থানে খোঁজার সময় রুমা ও এমরান অন্যদের মতো নিহতের মা ববিতার সঙ্গেই ছিল। তাদেরকে তখন ভীত দেখাচ্ছিল।

অভিযুক্ত এমরান গাছ কাটার শ্রমিক ও কেরোয়া ইউপির মীরগঞ্জ বাজার এলাকার বাসিন্দা। স্ত্রী রুমাকে নিয়ে দুই মাস ধরে তিনি সাগরদি গ্রামের কাতার প্রবাসী আবুল কাশেমের বাড়িতে ভাড়া থাকেন।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। স্বামী-স্ত্রীকে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here