এক ভুলেই সব শেষ! কৃষককে যেতে হলো কারাগারে

নরসিংদী প্রতিনিধি:নরসিংদীতে ভুয়া গ্রেফতারি পরোয়ানায় চার দিন কারাবাস করেছেন আবদুর রাশিদ (৬৫) নামের এক বৃদ্ধ। পরে চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে (সিএমএম কোর্ট) এই পরোয়ানা ভুয়া প্রমাণিত হলে সোমবার (২৩ আগস্ট) বিকেলে জেলা কারাগার থেকে ছাড়া পান তিনি।

এর আগে ১৯ আগস্ট দুপুরে মনোহরদীর নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ। আবদুর রাশিদ মনোহরদী উপজেলার তারাকান্দি গ্রামের মৃত ছমির উদ্দিনের ছেলে। তিনি পেশায় একজন কৃষক।

আবদুর রাশিদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৯ আগস্ট দুপুরে রাশিদের বাড়িতে গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে হাজির হন মনোহরদী থানার উপ-পরিদর্শক ওমর ফারুক। এ সময় কৃষক রাশিদের বিরুদ্ধে ঢাকার সিএমএম কোর্টে সাজার পরোয়ানা থাকায় তাকে গ্রেফতার করতে আসেন বলে জানান তিনি।

পরে তাকে গ্রেফতার করে সেদিনই আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। এরপর, শুক্র ও শনিবার ছুটির দিন থাকায় রোববার ওই বৃদ্ধের স্বজনরা ঢাকার সিএমএম কোর্টের আইনজীবীর মাধ্যমে গ্রেফতারি পরোয়ানার কাগজ সিএমএম কোর্টে দাখিল করেন।

এ সময় আদালতে এ ধরনের মামলার কোনো নথি না থাকা এবং ওই পরোয়ানা ভুয়া প্রমাণিত হওয়ায় তাকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দেন আদালত। পরে নরসিংদী জেলা কারাগার থেকে সোমবার বিকেলে মুক্তি পান আবদুর রাশিদ।

আবদুর রাশিদের আইনজীবী আবু সাইদ সিদ্দিকী বলেন, কেউ গ্রেফতারি পরোয়ানার কাগজপত্র কারসাজি করে হয়তো এই ঘটনা ঘটিয়েছে। রাশিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা স্মারক নম্বর খোঁজ করে পাওয়া যায়নি।

ভুক্তভোগী আব্দুর রাশিদের ছেলে মাজহারুল ইসলাম বলেন, আমরা এই হয়রানির বিচার চাই। আমার বাবা নিতান্তই একজন নিরীহ মানুষ। কেউ হয়তো উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই কাণ্ড ঘটিয়েছে।

মনোহরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিচুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমি অবগত। আজ আদালতে পরোয়ানা ভুয়া প্রমাণিত হয়েছে। আগেই যদি জানতাম গ্রেফতারি পরোয়ানা ভুয়া তাহলে তো গ্রেফতারই করতাম না।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) ইনামুল হক সাগর বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। কীভাবে ঘটলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here