বরিশাল সংঘর্ষে মেয়র সাদেক আবদুল্লাহ ও প্যানেল মেয়রসহ ৫ জন গুলিবিদ্ধ, আহত অন্তত ২০

নিজস্ব প্রতিনিধিঃবরিশালে পোস্টার অপসারণকে কেন্দ্র করে পুলিশের সাথে আওয়ামী লীগ-যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের তুমুল সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের দাবি, এই ঘটনায় বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র সাদেক আবদুল্লাহ, প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম খোকনসহ অন্তত ২০ জন আহত হ‌য়ে‌ছেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম সরওয়ার রাজিব নিশ্চিত করেছেন যে, এ ঘটনায় মেয়র ও প্যানেল মেয়রসহ অন্তত ৫ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

বুধবার (১৮ আগস্ট) বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুনিবুর রহমানের সরকারি বাসভবনের আনসার সদস্য ও সিটি করপোরেশনের কর্মীদের মাঝে বাকবিতণ্ডা ও গুলির জেরে এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল বুধবার (১৮ আগস্ট) সন্ধ্যায় পরিষদ চত্বরে আওয়ামী লীগের ব্যানার অপসারণ করতে যায় সিটি করপোরেশনের কর্মীরা। এসময় পরিষদ চত্বরের ভেতরে ইউএনও’র বাসভবনে দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা বাধা দেয়। পরে আওয়ামী লীগ-যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মীকে নিয়ে আবারও পরিষদ চত্বরে যায় সিটি করপোরেশনের কর্মীরা। এ সময় ইউএনও মনিবুর রহমানের সাথে তাদের বাকবিতণ্ডা হয়। উত্তেজনার এক পর্যায়ে গুলি চালায় আনসার সদস্যরা। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ।

এ সময় ফের উত্তেজনা দেখা দেয়। আবারও গুলি চালায় আনসার সদস্যরা। দুই দফা গুলিতে মেয়র সাদেক আবদুল্লাহ, প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম খোকনসহ আহত হন ৫ জন। পরে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা উপজেলা পরিষদের সামনের রাস্তায় অবস্থান নিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। এক পর্যায়ে পরিষদ চত্বরে ঢুকতে গেলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। আহত হন অন্তত ২০ জন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here