হাদিসের আলোকে রাগ দমনের পদ্ধতি

নিউজ ডেস্কঃশয়তান মানুষের ক্ষতি সাধনে সদা তৎপর। মানব জাতির ক্ষতি করে শয়তান বিপুল আনন্দ পায়। তাই মহান আল্লাহ ও তার রাসূল (সা.) মানব জাতিকে শিখিয়েছেন, মানুষ যেন আল্লাহর কাছে শয়তানের অনিষ্টতা থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করে। শয়তানের শত্রুতা থেকে রক্ষা চায়। শয়তান মানুষকে ক্রোধে জড়িয়ে বিনাশ ডেকে আনে।

প্রচণ্ড ক্রোধে মানুষ দিশেহারা ও বিবেকহীন হয়ে যায়। আর সেই সুযোগেই শয়তান মানুষকে কুমন্ত্রণা দিয়ে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যায়। অন্যায়ের পথে পরিচালিত করে। তাই নবীজি (সা.) মানব জাতিকে শয়তানের কুমন্ত্রণা হতে মুক্ত থেকে কীভাবে ক্রোধ দমন করা যায়, সে আমল শিখিয়ে দিয়ে গেছেন।

অল্পতেই রেগে যাওয়া নিন্দনীয় : অন্যসব আবেগের মতোই রাগও মানুষের একটি সহজাত প্রবৃত্তি। কেউ খুব দ্রুত রেগে যায়, আবার দ্রুতই তার রাগ চলে যায়। কেউ আবার দেরিতে রেগে খুব দ্রুত তার রাগ কেটে যায়। কেউ রেগে যায় খুব দ্রুত, কিন্তু তার রাগ সহজে কেটে যায় না; বরং সে বহুদিন পর্যন্ত সেই রাগ পুষে রেখে মানুষের ক্ষতি করার চেষ্টা করে। যারা অল্পতে রেগে যায় এবং সেই রাগ বহুদিন পুষে রাখে, রাসূল (সা.) তাদের নিকৃষ্ট মানুষ বলে আখ্যা দিয়েছেন। (তিরমিজি, হাদিস : ২১৯১)

রাগ না হওয়ায় কল্যাণ নিহিত : রাগ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে মানুষ বড় ধরনের বিপদে পড়ে যেতে পারে। এ কারণে রাসূল (সা.) তার সাহাবিদের রাগ নিয়ন্ত্রণের তাগিদ দিতেন। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, ‘এক ব্যক্তি রাসূল (সা.)-এর কাছে বলল, আপনি আমাকে উপদেশ দিন। তিনি (নবীজি) বলেন, তুমি রাগ কোরো না। লোকটি কয়েকবার তা বলেন, নবীজি (সা.) প্রত্যেকবারই বলেন, রাগ করো না।’ (বুখারি, হাদিস : ৬১১৬)

বুখারি শরিফের ব্যাখ্যাকার আব্দুল ওয়াহেদ (ইবনে তিন) (রহ.) বলেন, রাসূল (সা.)-এর উপদেশ ‘রাগ করো না’-এর মধ্যে ইহকাল ও পরকালের কল্যাণ নিহিত রয়েছে। কারণ রাগ মানুষের মধ্যে শত্রুতা সৃষ্টি করে, সম্পর্ক নষ্ট করে, যা মানুষের ইহকালীন ক্ষতির কারণ হয়। কেউ কেউ রাগের বশবর্তী হয়ে আবার অন্যের ক্ষতি করার চেষ্টা করে বসে, যা মানুষের পরকালকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। (ফাতহুল বারি : ১০/৫২০)

এ কারণেই হয়তো রাসূল (সা.) বলেছেন, প্রকৃত বীর সে নয়, যে কুস্তিতে মানুষকে হারিয়ে দেয়; বরং সেই প্রকৃত বীর, যে রাগের সময় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। (বুখারি, হাদিস : ৬১১৪)

রাগী ব্যক্তির ওপর শয়তানের প্রভাব : মানুষ যখন রেগে যায়, তখন তার ওপর শয়তান ভর করে। ফলে সে অস্বাভাবিক আচরণ করতে শুরু করে। অন্যের ক্ষতি করার চেষ্টা করে। রাসূল (সা.)-এর সামনে এক ব্যক্তি  আবু বকর সিদ্দিক (রা.)-কে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকল। আবু বকর চুপচাপ তার গালি শুনতে থাকলেন, আর তার দিকে চেয়ে রাসূল (সা.) মুচকি হাসতে থাকলেন। অবশেষে আবু বকর সিদ্দিক জবাবে তাকে একটি কঠোর কথা বলে ফেলেন। তার মুখ থেকে সে কথাটি বের হওয়ামাত্র নবী (সা.)-এর ওপর চরম বিরক্তি ভাব ছেয়ে গেল এবং ক্রমে তা তার পবিত্র চেহারায় ফুটে উঠল। তিনি তখনই উঠে চলে গেলেন। আবু বকরও (রা.) উঠে তাকে অনুসরণ করলেন এবং জিজ্ঞেস করলেন, ব্যাপার কী? সে যখন আমাকে গালি দিচ্ছিল তখন আপনি চুপচাপ মুচকি হাসছিলেন। কিন্তু যখনই আমি তাকে জবাব দিলাম তখনই আপনি অসন্তুষ্ট হলেন? রাসূল (সা.) বলেন, তুমি যতক্ষণ চুপচাপ ছিলে ততক্ষণ একজন ফেরেশতা তোমার সঙ্গে ছিল এবং তোমার পক্ষ থেকে জবাব দিচ্ছিল। কিন্তু যখন তুমি নিজেই জবাব দিলে তখন ফেরেশতার স্থানটি শয়তান দখল করে নিল। আমি তো শয়তানের সঙ্গে বসতে পারি না। (আল মুজামুল আউসাত : ৭/১৮৯)

এ কারণেই রাসূল (সা.) সাহাবায়ে কেরামকে রেগে গেলে ‘আউজুবিল্লাহি মিনাশ শায়তনির রজিম’ পড়ার পরামর্শ দিতেন। কেননা মানুষের ওপর রাগ চেপে বসলে তখন শয়তান তাকে তাণ্ডব চালানোর প্ররোচনা দেয়। আর মহান আল্লাহ তার বান্দাদের শয়তানের প্ররোচনা থেকে বাঁচতে তাঁর কাছে আশ্রয় চাওয়ার শিক্ষা দিয়েছেন। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর যদি শয়তানের পক্ষ থেকে কোনো কুমন্ত্রণা আপনাকে প্ররোচিত করে, তবে আপনি আল্লাহর আশ্রয় চাইবেন, নিশ্চয়ই তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ। (সুরা : হা-মিম আস সাজদা, আয়াত : ৩৬)

রাগ দমনের উপায় : নিম্নে হাদিসে বর্ণিত রাগ নিয়ন্ত্রণের কয়েকটি উপায় বর্ণনা করা হয়েছে। রাসূল (সা.) নানা অবস্থার প্রেক্ষাপটে তা বর্ণনা করেছেন।

এক. দোয়া পাঠ : সুলাইমান ইবনে সুরাদ (রা.) বলেন, দুই ব্যক্তি রাসুলাল্লাহ (সা.)-এর সামনে পরস্পরকে গালি দিতে লাগল। তাদের একজনের চোখ লাল হতে থাকে ও ঘাড়ের রগ মোটা হতে থাকে। রাসুল (সা.) বলেন, আমি অবশ্যই এমন একটি বাক্য জানি এ ব্যক্তি তা বললে নিশ্চয়ই তার রাগ চলে যাবে। তা হলো : ‘আউজুবিল্লাহি মিনাশ শায়তনির রজিম’। অর্থ : অভিশপ্ত শয়তান থেকে আমি মহান আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাইছি। লোকটি বলল, আপনি কি আমার পাগল ভাব দেখছেন! (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৮১)

দুই. স্থান পরিবর্তন : রাগ নিয়ন্ত্রণের আরেকটি পদ্ধতি হলো, অবস্থান পরিবর্তন করা। বর্তমানে বিভিন্ন বিশেষজ্ঞরাও রাগ নিয়ন্ত্রণের জন্য অবস্থার পরিবর্তন করে মনোযোগ অন্য দিকে নেয়ার পরামর্শ দেন। আবু জার (রা.) বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তোমাদের কারো যদি দাঁড়ানো অবস্থায় রাগের উদ্রেক হয় সে যেন বসে পড়ে। এতে যদি তার রাগ দূর হয় তো ভালো, অন্যথায় সে যেন শুয়ে পড়ে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৮২)

তিন. চুপ থাকা : আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমরা শিক্ষা দাও এবং সহজ করো। কঠিন কোরো না। যখন তুমি রাগান্বিত হও তখন চুপ থাকো; যখন তুমি রাগান্বিত হও তখন চুপ থাকো; যখন তুমি রাগান্বিত হও তখন চুপ থাকো।’ (মুসনাদে আহমদ, হাদিস : ৪৭৮৬)

কোরআন ও হাদিসে রাগ দমনের একাধিক উপকারিতা বর্ণনায় এসেছে। রাগ দমনকারীর জন্য জান্নাতের ঘোষণা দিয়ে রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তুমি রাগ করবে না, তাহলে তোমার জন্য জান্নাত।’ (সুনানে তাবরানি, হাদিস : ২১)

চার. অজু করা : রাগ নিয়ন্ত্রণের আরেকটি পদ্ধতি হলো, অজু করে নেয়া। আবু ওয়াইল আল-কাস (রহ.) বলেন, একদা আমরা উরওয়াহ ইবনে মুহাম্মদ আস-সাদির কাছে গেলাম। তখন এক ব্যক্তি তার সঙ্গে কথা কাটাকাটি করে তাকে রাগিয়ে দিল। (সঙ্গে সঙ্গে) তিনি দাঁড়িয়ে অজু করলেন। অতঃপর বললেন, আমার বাবা আমার দাদা ‘আত্তিয়্যাহ (রা.) সুত্রে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, রাগ হচ্ছে শয়তানি প্রভাবের ফল। শয়তানকে আগুন থেকে সৃষ্টি করা হয়েছে। আর আগুন পানি দিয়ে নেভানো যায়। অতএব তোমাদের কারো রাগ হলে সে যেন অজু করে নেয়। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৮৪)

পাঁচ. নামাজে দাঁড়িয়ে যাওয়া: কেননা নামাজে মানুষের রাগ প্রশমিত হয়ে যায় এবং স্বাভাবিক চিন্তা-বুদ্ধি ফিরে আসে। নামাজের মাঝে আল্লাহ তায়ালা বান্দার জন্য স্বস্তি, আস্থা, স্থিরতা ও নিবিড় প্রশান্তি রেখে দিয়েছেন।

রাগের প্রকারভেদ: সব রাগ নিন্দনীয় নয় রাগ নিন্দনীয়, তবে সব রাগ দোষের নয়। কিছু রাগ এমন রয়েছে, যা প্রশংসনীয়। মূলত রাগ দুই প্রকার। নিন্দনীয় রাগ : নিন্দনীয় রাগ হচ্ছে সেসব জাগতিক রাগ, যার ব্যাপারে আল্লাহর রাসূল (সা.) উম্মতকে সতর্ক করেছেন। যেমনটি আলোচ্য হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। প্রশংসনীয় রাগ : সেসব রাগ প্রশংসনীয়, যা আল্লাহ, রাসূল (সা.) ও দ্বীনের স্বার্থে করা হয়। আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আল্লাহর রাসূলুল্লাহ (সা.) কখনো নিজের কোনো ব্যাপারে কারোর কাছ থেকে প্রতিশোধ গ্রহণ করেননি। তবে মহান আল্লাহর নিষিদ্ধ কোনো কাজ করে ফেললে তার জন্য যথাবিহিত শাস্তির ব্যবস্থা করতেন।’ (আল জামে বাইনাস সাহিহাইন, হাদিস : ৩১৮৪)

রাগ দমনের দৃষ্টান্ত: আলী ইবনে হুসাইন (রহ.)-এর দাসী অজুর পানি ঢেলে দিচ্ছিল। হঠাৎ পানির পাত্রটি তার হাত থেকে তার (আলী ইবনে হুসাইন রহ.) চেহারার ওপর পড়ে গেল এবং তা ভেঙে গেল। তিনি আহত হলেন। অতঃপর তিনি তার দিকে মাথা ওঠালেন। তখন দাসী বলল, নিশ্চয় আল্লাহ বলেছেন, ‘যারা রাগ দমন করে।’ তিনি দাসীকে বললেন, ‘আমি আমার রাগ দমন করলাম।’ সে বলল, ‘যারা মানুষকে ক্ষমা করে।’ তিনি তাকে বললেন, ‘আমি তোমাকে ক্ষমা করে দিলাম।’ সে বলল, ‘আল্লাহ অনুগ্রহকারীকে ভালোবাসেন।’ তিনি বললেন, ‘যাও আমি তোমাকে আল্লাহর জন্য মুক্ত করে দিলাম।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here